Tech Tips

ওয়াইফাই সিকিউরিটি বৃদ্ধি করার উপায়

বর্তমান সময়ে ওয়াইফাই সিকিউরিটি দিকে অবশ্যই নজর দেওয়ার সময় এসেছে। এর কারণ হচ্ছে দিন যাচ্ছে হ্যাকারদের সংখ্যা বৃদ্ধি পাচ্ছে এবং তারা আপনার ওয়াইফাই হ্যাক করে গুরুত্বপূর্ণ তথ্য চুরি করার ফলে আপনি বড় ধরনের ক্ষতির সম্মুখীন হতে পারেন। তাই ওয়াইফাই এর সিকিউরিটির দিকে অবশ্যই খেয়াল রাখা উচিত। এবং সর্বোচ্চ সিকিউরিটির নিশ্চয়তা করতে হবে। বর্তমানে আমাদের দেশে ওয়াইফাই এর ব্যবহার দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে তার সাথে এর ভোগান্তি কিন্তু রয়েছে। আপনার ওয়াইফাই হ্যাক করে হ্যাকার আপনার ক্ষতি করতে পারে। তাই আমি মনে করি যারা ওয়াইফাই ব্যবহারকারী রয়েছেন তাদের ওয়াইফাই সিকিউরিটির বৃদ্ধি করার উপায় সম্পর্কে জেনে রাখা উচিত।

আরো পড়ুনঃ এখনই সাবধান হোন! হ্যাকার থেকে বাঁচার উপায়

ওয়াইফাই সিকিউরিটি বৃদ্ধি করার উপায়

আপনার ওয়াইফাই লাইনটা যদি নিরাপদ রাখতে চান অবশ্যই তার সিকিউরিটি বৃদ্ধি করতে হবে। আর এই সিকিউরিটি বৃদ্ধি করার জন্য বিভিন্ন দিকগুলো খেয়াল রাখতে হবে এমন কিছু টিপস রয়েছে যেগুলো অনুসরণ করতে হবে। তাহলে চলুন জেনে নেওয়া যাক ওয়াইফাই সিকিউরিটি বৃদ্ধির টিপস গুলোর সম্পর্কে

১। সহজ পাসওয়ার্ড

সহজে পাসওয়ার্ড মনে রাখার জন্য বেশিরভাগ ক্ষেত্রে আমরা সহজ পাসওয়ার্ড ব্যবহার করি। আপনি কি জানেন এই সহজ পাসওয়ার্ড ব্যবহার করার জন্য হ্যাকারদের কাছে আমাদের ওয়াইফাই রাউটার হ্যাক করাও সহজ হয়ে যায়। হ্যাকাররা বিভিন্ন ধরনের টুলস ব্যবহার করে হ্যাক করার চেষ্টা করে। এই টুলসগুলো সহজ পাসওয়াড গুলোকে খুব সহজেই জেনারেট করতে পারে। সহজ পাসওয়ার্ড বলতে আমি বুঝিয়েছি, কারো মোবাইল নাম্বার বা  ১২৩৪৫৬ এই ধরনের পাসওয়ার্ড ব্যবহার করাকে। কঠিন পাসওয়ার্ড ব্যবহার করার জন্য বড় ও ছোট হাতের অক্ষর এবং তার সাথে সংখ্যা যুক্ত করে পাসওয়ার্ড লিখতে হবে। যেমনঃ Hdh%23#h

২। ডিফল্ট লগইন ডিটেলস পরিবর্তন করুন

রাউটারের সেটিংস এ প্রবেশ করার সময় ডিফল্টভাবে লগইন ডিটেলস এর ইউজার নেম এবং পাসওয়ার্ড admin থাকে। এটি পরিবর্তন করে কোন কঠিন পাসওয়ার্ড যুক্ত করুন। বর্তমানের কিছু রাউটারের সেটিংস এ প্রবেশ করার সময় কোন ধরনের লগইন ডিটেলস দিতে হয় না। সেই রাউটারগুলোতে আলাদাভাবে পাসওয়ার্ড সেট করতে হয়। অবশ্য রাউটারের পাসওয়ার্ড সেট করে নেবেন।

৩। আপডেট এনক্রিপশন(WPA)ব্যবহার করুন

আপনারা হয়তো অনেকেই এনক্রিপশন(wpa) সম্পর্কে জানেন না, এনক্রিপশন হচ্ছে রাউটারের সিকিউরিটি রক্ষার একটি সিস্টেম। ওয়াইফাই আলায়েন্স দ্বারা এনক্রিপশন তৈরি করা হয়েছে যাতে ওয়ারড ইকুইভ্যালেন্ট প্রাইভেসি (wep) আসল ওয়াইফাই নিরাপত্তা স্ট্যান্ডার্ডের চেয়ে আরও পরিশীলিত  ডাটা এনক্রিপশন এবং  আরো ভালো ব্যবহারকারীর প্রমাণিকরণ প্রদান করা হয়।

সর্বপ্রথম WPA প্রকাশিত হয়েছিল ২০০৩ সালে। তারপর এটি ওয়াইফাই ব্যবহারকারীদের নিরাপত্তা বা প্রটোকলের দুর্বলতার কারণে এটির ব্যবহার আস্তে আস্তে কমে যাওয়া শুরু হয়। তারপর WPA পরবর্তী ভার্সন WPA2 নামে আসে যা ২০০৪ সালে প্রথম প্রকাশিত হয়েছিল। এরপর আবার ২০১৮ সালে WPA পরবর্তী ভার্সন বের হয় যা WPA3 নামে প্রকাশিত হয়।

তাই ওয়াইফাই সিকিউরিটি বৃদ্ধি করার জন্য একদম আপডেট এনক্রিপশন ব্যবহার করতে হবে। বর্তমানে WPA3 ব্যবহার সেভাবে প্রচলিত হয়নি তাই বেশিরভাগ রাউটারে এই সিস্টেমটি নেই। আপনার রাউটারের যদি WPA3 সিকিউরিটি মুড থাকে তাহলে ব্যবহার করুন আর না থাকলে আপনার রাউটার অনুযায়ী সর্বোচ্চ এনক্রিপশন ব্যবহার করুন।

৪। ডিভাইসে অ্যান্টিভাইরাস ব্যবহার করুন

আপনি যে ডিভাইস গুলোর মাধ্যমে ওয়াইফাই সাথে সংযুক্ত আছেন, সে ডিভাইস গুলোতে ভালো মানের এন্টিভাইরাস ব্যবহার করুন। হ্যাকাররা অনেক সময় নানা ধরনের ভাইরাস আপনার মোবাইলে প্রবেশ করানোর চেষ্টা করতে পারে। যদি এন্টিভাইরাস ব্যবহার করেন তাহলে সেই চেষ্টা হ্যাকারদের ব্যর্থ হবে।

৫। রাউটারের নাম পরিবর্তন করুন

নতুন রাউটার গুলোতে ডিফল্টভাবে সে ব্র্যান্ডের নাম গুলোই দেওয়া থাকে। আর হ্যাকাররা ভালোভাবে জানে কোন ব্র্যান্ডের রাউটারে কি দুর্বলতা রয়েছে। তাই আপনার রাউটারের নাম অন্য কোন নাম দেওয়ার চেষ্টা করুন আপনার নাম দেওয়া থেকেও বিরত থাকবেন।

৬। অটো কানেক্ট এড়িয়ে চলুন

আমাদের ডিভাইস গুলোতে অটোকানেক্ট এর সিস্টেমটি অন রাখি, যখনই আমরা রাউটারের নেটওয়ার্কের আওতায় আসি তখনই আমাদের ডিভাইসের সাথে রাউটার কানেক্ট হয়ে যায়। হ্যাকাররা একদম আপনার রাউটার মতন হটস্পট তৈরি করে আপনাকে ধোকা দিতে পারে, আপনি যদি হ্যাকারদের হটস্পট ডিভাইস কানেক্ট করে ফেলেন তাহলে আপনার ডিভাইসটির পুরোপুরি এক্সেস হ্যাকাররা পেয়ে যাবে। তাই ওয়াইফাই সিকিউরিটির রক্ষার্থে অটো কানেক্ট এড়িয়ে চলুন

৭। রাউটারের ফ্রেমওর্য়াক আপডেট রাখুন

অনেকেই আছেন রাউটারের ফার্ম ওয়ার্ক সম্পর্কে জানেন না, ফ্রেম ওয়ার্ক হল একটি কাঠামো যা আপনি সফটওয়্যার তৈরি করতে পারবেন। রাউটার রান করানোর জন্য ফ্রেমওয়ার্ক ব্যবহার করা হয়। যখন কোন রাউটারের দুর্বলতা প্রকাশ পায় তখন সেই রাউটারের কোম্পানি ফ্রেমওয়ার্ক আপডেট ভার্সন প্রকাশিত করে। তাই ওয়াইফাই সিকিউরিটি রক্ষার্থে রাউটারের ফ্রেমওয়ার্ক আপডেট রাখা খুবই গুরুত্বপূর্ণ।

৮। বাইরে গেলে রাউটার বন্ধ রাখুন

আপনি যদি দীর্ঘ সময়ের জন্য বাইরে ঘুরতে যান বা অন্য কোন কাজে যাওয়ার প্রয়োজন হয়। তাহলে চেষ্টা করবেন রাউটার বন্ধ রেখে যাওয়ার, এর কারণ হচ্ছে হ্যাকাররা সব সময় আপনার রাউটারের এক্সেস গ্রহণ করার চেষ্টায় থাকে। আপনি যদি বাইরে যাওয়ার সময় রাউটার বন্ধ করে যান তাহলে অবশ্যই তাদের কাজে বিগ্ন ঘটবে। তাই যখনই বাইরে বের হবেন মনে করে রাউটার বন্ধ করে বের হন।

৯। প্রতিদিন ইউজারদের খেয়াল রাখুন

বর্তমান রাউটার গুলোতে কতজন ইউজার ব্যবহার করছে সেটি দেখা যায়। তাই প্রতিদিন রাউটারের ইউজারগুলোর প্রতি খেয়াল রাখুন যদি কোন নতুন ডিভাইস কানেক্ট হয় তাহলে সঙ্গে সঙ্গে ব্লক করে দিন এবং আপনার ওয়াইফাই এর পাসওয়ার্ড পরিবর্তন করে ফেলুন। এর ফলে ওয়াইফাই সিকিউরিটি অনেক বৃদ্ধি পাবে

Follow topics bangla facebook page

আরো পড়ুনঃ

মোবাইল চার্জ দেওয়ার সঠিক নিয়ম জেনে নিন। 2021

মন ভালো করার উপায়।2021

Topicsbangla

জানা ও অজানা বিষয় গুলো আপনাদের কাছে তুলে ধরা আমাদের মূল লক্ষ।আমাদের সাথেই থাকুন আশা করি উপকৃত হবেন।☺☺

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button